ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায় ও কৌশল

ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায় ও কৌশল 2023

নতুন হিসেবে ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায় কি বা অল্প সময়েই ফাইবারে কিভাবে কাজ পাওয়া যায় এই বিষয়ে অনেকেই জানতে চান। আপনি যদি ফাইভারে কাজ শুরু করে থাকেন অথবা শুরু করতে চান তবে এই আর্টিকেলটি আপনার জন্যই।

নতুন ফ্রিল্যান্সারদের প্রথম পছন্দ হলো ফাইভার মার্কেটপ্লেস। বেশিরভাগ ফ্রিল্যান্সারই ফাইভার দিয়ে তাদের ফ্রিল্যান্সিং যাত্রা শুরু করে। ফাইভারে নতুন একাউন্ট খুলে সকলেই প্রথম অর্ডারের অপেক্ষায় থাকে।

কিন্তু ফাইভারে অনেক বেশি কম্পিটিশন থাকায় নতুন সেলারদের বিভিন্ন টাইপের গিগ ফাইভারে প্রকাশ করা সত্ত্বেও বায়ার রিকোয়েস্ট আসে না বা কাজ পায় না।

কাজ না পাওয়ার ব্যাপারটা প্রায় বেশিরভাগ সেলারদের সাথেই ঘটে। এমতবস্থায় অনেকেই ফাইভার ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। কিন্তু এমন কিছু ফাইভার টিপস বা কৌশল রয়েছে, যেগুলোর ফলো করে খুব সহজেই ফাইভারের গিগ সেল বৃদ্ধি করা সম্ভব।

আজ আমি আপনাদের বলব, সঠিক নিয়মে কিভাবে ফাইভারে গিগ তৈরি করতে হয় এবং কিভাবে সহজেই ফাইভারে বায়ায় রিকোয়েস্ট পাওয়া যায় তার বিস্তারিত বিষয়াদি সম্পর্কে।

ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায়

ফাইভারে নতুন সেলার হিসেবে যুক্ত হওয়ার সময় সঠিক ক্যাটাগরি সিলেক্ট করা খুবই জরুরি। অর্থাৎ, আপনি কোন বিষয়ের উপর কাজ করবেন তা প্রথমেই নির্বাচন করুন।

ফাইভার এমন একটি ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস যেখানে প্রায় সব ধরণের সৃজনশীল কাজ করা যায়। তবে একথা সত্য যে, সকল কাজের চাহিদা সমান নয়।

চাহিদা ও জনপ্রিয়তার দিক দিয়ে ওয়েব ডিজাইন এবং ডেভেলপমেন্ট, ওয়েবসাইট স্পিড অপটিমাইজেশন, এসইও, অ্যাপস ও সফটওয়্যার ডিজাইন, গ্রাফিক্স ডিজাইন, এনিমেশন তৈরি এবং লোগো ডিজাইন ইত্যাদি সার্ভিসগুলো ফাইভারে প্রচুর চাহিদা রয়েছে।

আপনি এমন সৃজনশীল কাজের উপর স্কিল ডেভেলপ করে ফাইভারে কাজ করার মাধ্যমে অনেক উন্নত মানের ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার ডেভেলপ করতে পারবেন। চলুন জেনে নিই ফাইবারে কিভাবে কাজ পাওয়া যায়।

প্রফেশনাল সেলার প্রোফাইল তৈরি

Fiverr এ একটি প্রফেশনাল মানের সুন্দর ও গুছালো প্রোফাইল বায়ারদেরকে আপনার উপর আস্থা রাখার মানসিকতা তৈরি করে। কোনো বায়রই প্রোফাইল চেক না করে কাজ দেয় না।

তাই আপনার ফাইভার সেলার প্রোফাইলটি প্রফেশনাল ভাবে সাজিয়ে তুলুন। বিশেষ করে প্রোফাইলে আপনার নিজস্ব ছবি দিন এবং About সেকশনে অভিজ্ঞতা ও নিজের সম্পর্কে বিস্তারিত বিবরণ দিন।

সঠিক গিগ টাইটেল ও ডেসক্রিপশন

গিগ র‌্যাংক করানোর জন্য সঠিক Gig Title এবং সুন্দর ও ইউনিক Gig description লিখুন। টার্গেটেড কিওয়ার্ডটি অবশ্যই গিগ টাইটেলে একবার ব্যবহার করুন।

আর গিগ ডেসক্রিপশনে টার্গেটেড কিওয়ার্ডটি ২-৩ বার ব্যবহার করুন। টার্গেটেড কিওয়ার্ড ছাড়া রিলেটেড আরো কিছু কিওয়ার্ড ডেসক্রিপশনে দেওয়া যেতে পারে। তবে কিওয়ার্ড দেওয়ার ক্ষেত্রে ন্যাচারাল পদ্ধতি অনুসরণ করুন।

গিগ এর ফিচার সমূহ ডেসক্রিপশনে বিভিন্ন ফরমেটিং করে উপস্থাপন করা জরুরি। এজন্য Bold, Underline, List এবং Highlight ফরমেটিং অপশনগুলো ব্যবহার করতে পারেন।

আকর্ষণীয় গিগ ইমেজ ও ভিডিও

গিগে ব্যবহৃত ইমেজ ও ভিডিও অবশ্যই আকর্ষণীয় ও ইউনিক হওয়া খুবই জরুরি। একজন বায়ার সর্বপ্রথম গিগে ব্যবহৃত টাইটেল, ফিচার ইমেজ ও ভিডিও গুলো দেখতে পায়।

প্রথম দেখাতেই যেনো বায়ার আপনার গিগে সৃজনশীল এমন কিছু দেখতে পায় যা তাকে আকর্ষণ করে। এক্ষেত্রে আপনার গিগের মূল ফিচার সমূহ ফিচার ইমেজে বা ভিডিওতে তুলে ধরতে পারেন।

অনেকেই বায়ারদের দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য গিগের ফিচার ইমেজ ও ভিডিওতে অশ্লীল নারীদের ছবি ব্যবহার করে। এটা ফাইভারের নীতিমালার সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। পাপও বটে। তাই এমনটা কোনো ভাবেই করা যাবে না।

গিগে আকর্ষণীয় অফার বা এমন কিছু রাখা

নতুন অবস্থায় গিগ এর ফিচারে আকর্ষণীয় এমন কিছু রাখুন, যা সচারাচর অন্য সেলারদের গিগে নেই। যেমন ধরুন আপনার গিগটি WordPress e-commerce website development বিষয়ে। এখানে আপনি Domain বা hosting ফ্রিতে অফার করুন।

এগুলো বায়ারদেরকে দৃষ্টিআকর্ষণ করে এবং গিগে অর্ডার করতে অনুপ্রেরণা দেয়। এটা ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায় গুলোর মধ্যে খুবই চমৎকার একটি কৌশল বলা যায়।

কিওয়ার্ড ভিত্তিক ট্যাগ ব্যবহার

ফাইভারের গিগ গুলোতে এমন কিছু কিওয়ার ব্যবহার করা যা বায়ারেরা লিখে সার্চ করে। বেস্ট কিওয়ার্ড খুঁজে পেতে আপনি কিওয়ার্ড রিসার্চ এর শরণাপন্ন হতে পারেন।

যথাসাধ্য ফাইভারে এক্টিভ থাকা

বায়ারেরা এমন সেলারদেরকে কাজের অফার করতে পছন্দ করে যারা রিয়েলটাইম অনলাইনে থাকে। সকলেই জানেন, ফাইভারে এক্টিভ থাকলে প্রোফাইলের পাশে সবুজ কালারের একটি বৃত্ত দেখা যায়। বায়ারেরা এই সবুজ বৃত্তটি দেখে বেশিরভাগ সময় সেলারকে রিকোয়েস্ট দেয়।

সোশ্যাল মিডিয়াতে গিগ প্রমোট করা

সকলেই জানেন, ইন্টারনেট ইউজারদের বেশিভাগ ইউজার সোশ্যাল প্লাটফর্ম গুলোতে সময় দেয়। ফাইভারের গিগ গুলোকে সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করলে গিগ সেল হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

পাশাপাশি গিগ জন্য একটি হাই কোয়ালিটি ব্যাকলিংকও তৈরি হয়। এসইওতে ভালো করার জন্য ব্যাকলিংক খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং ব্যাকলিংকের মাধ্যমে গিগ র‌্যাংক বাড়ে।

সোশ্যাল মিডিয়াতে গিগ প্রমোট করার মানে এইনা যে, অর্থ খরচ করে গিগ প্রমোট করতে হবে। গিগ শেয়ার করার মানেই হলো প্রমোট। আপনি চাইলে অর্থ দিয়েও গিগ প্রমোট করতে পারেন।

ফাইভারে স্কিল টেস্ট দেওয়া

ফাইভারে skill test খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটা আপনার নিজের অথরিটি বাড়াতে সাহায্য করে। ফাইভারের skill test এ ভালো ফল করতে পারলে বায়ারকে সহজে আকৃষ্ট করা যায়।

তাছাড়া, ফাইবার এখন skill test ছাড়া অনেকগুলো ক্যাটাগরিতে ভিডিও আপলোড করতে দিচ্ছে না। তাই আপনি চেষ্টা করবেন ফাইভারে স্কিল টেস্ট দিয়ে আপনার প্রোফাইলর অথরিটি বাড়াতে। এটা কাজ পেতে সাহায্য করে।

কাজের কোয়ালিটি ও অন-টাইম ডেলিভারি

আমরা সবাই কোয়ালিটি পছন্দ করি। যেখানে কোয়ালিটি আছে, সেখানেই বারবার ছুটে যাই। বিদেশি বায়াররা আমাদের চেয়ে বেশি কোয়ালিটির দিকে ফোকাস করে।

তাই কাজের কোয়ালিটি অবশ্যই ভালো হতেই হবে। আর প্রত্যেকটা বায়ারের কাজের অর্ড়ারে অন-টাইম ডেলিভারি আবশ্যক। ফাইভার যেহেতু রেটিং সিস্টেমের উপর কাজ করে, সেহেতু কোয়ালিটি ও অন-টাইম ডেলিভারির দিকে তীক্ষ্ণ নজর রাখতে হবে।

কাজের কোয়ালিটি বা অন-টাইম ডেলিভারির জন্য যদি বায়ার অতৃপ্ত থাকে তবে আপনার গিগে খারাপ রেটিং দিতে পারে। আর এটা গিগ র‌্যাংক নিঃসন্দেহে ডাউন করে দেয়।

ফাইভার ফোরাম ব্যবহার করা

ফাইভার গিগ ও প্রোফাইল র‌্যাংক করার ক্ষেত্রে লেটেস্ট সব টিপস ও কৌশল সম্পর্কে জানতে সেরা প্ল্যাটফর্ম হলো ফাইভার কমিউনিটি। এখানে টপ রেটেড ও অভিজ্ঞ সেলারগণ তাদের নিজস্ব অভিজ্ঞতার কথা আলোচনা করেন এবং বিভিন্ন দিক নির্দেশনা দেন।

আবার ফাইভার ফোরামের ডিসকাশন সেকশনে অংশগ্রহণ করে আপনি কাজ পাওয়ার বিভিন্ন টিপস ও কৌশল সম্পর্কে জানতে পারবেন। তাছাড়া, ফেসবুক গ্রুপ, কোড়া কমিউনিটি ও রেডিট ইত্যাদি ফোরাম থেকেও ফাইবার টিপস পাবেন।

শেষ কথাঃ

প্রিয় পাঠক, আপনি যদি ফাইভারে কাজ শুরু করে থাকেন অথবা শুরু করতে চান তবে উপরোক্ত বিষয়গুলো ফলো করতে পারেন। এগুলো ফলো করার মাধ্যমে আপনি খুব সহজেই ফাইবারে সাকসেস হতে পারবেন।

ফাইভারে কাজ করার ক্ষেত্রে আপনারা অবশ্যই ফাইভারের নীতিমালা অনুসরণ করবেন, তাহলে ফাইভারে দীর্ঘদিন কাজ করার সুযোগ পাবেন।

যাইহোক, নতুন হিসেবে ফাইভারে কাজ পাওয়ার উপায় কি বা অল্প সময়েই ফাইবারে কিভাবে কাজ পাওয়া যায় এই বিষয়ে নিজস্ব অভিজ্ঞতা থেকে আলোচনার করার চেষ্টা করেছি। আশাকরি আপনারা উপকৃত হবেন ইনশাআল্লাহ।

Add comment

Posts

Your Header Sidebar area is currently empty. Hurry up and add some widgets.