ইন্টারনেট কিভাবে কাজ করে - ইন্টারনেটের জনক কে

ইন্টারনেট কি এবং কিভাবে কাজ করে? ইন্টারনেটের জনক কে?

ইন্টারনেট কি – তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির এই যুগে Internet নাম শুনেননি এমন লোক খুঁজে পাওয়া দুষ্কর। বর্তমানে ইন্টারনেট প্রযুক্তিটি মানুষের দৈনন্দিন জীবনের সাথে ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে আছে। ডিজিটাল পদ্ধতিতে তথ্য আদান-প্রদান করা, ই-কমার্স এর মাধ্যমে অনলাইনে কেনাকাটা করা এমন সবকিছুর জন্যই ইন্টারনেটের প্রয়োজন রয়েছে।

ইন্টারনেট (Internet) এমন এক ধরণের নেটওয়ার্ক (network) যা একটি বিশাল জাল, যেটা সারা বিশ্বের (Globally) কম্পিউটার নেটওয়ার্কের সাথে পরস্পরে (interconnected) সংযুক্ত হয়ে আছে।

আপনি যে এই মূহুর্তে আমাদের এই আর্টিকেলটি পড়ছেন এটাও কম্পিউটার নেটওয়ার্কের (computer network) অন্তর্ভূক্ত। অনলাইন বলতে আমরা যা বুঝি তার পুরোটাই ইন্টারনেট ভিত্তিক এবং কম্পিউটারের মাধ্যমে এটি নিয়ন্ত্রণ করা হয়।

ইন্টারনেট ব্যবহারের অনেক সুবিধা রয়েছে। আজকাল ইন্টারনেটের সুবিধা থেকে কেহই বঞ্চিত হতে চায় না। কারণ, এখন ইন্টারনেট প্রযুক্তি মানুষের জীবনকে আধুনিকায়নের পাশাপাশি জীবন যাত্রার মান অনেক উন্নত ও সহজ করেছে।

বর্তমানে পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অপর প্রান্তের যে কোনো খরব মুহূর্তের মধ্যেই পাওয়া যায়। তাছাড়া, ইন্টারনেট ভিত্তিক বাণিজ্য চালু হওয়ার কারণে এখন নিজ ঘরে বসেই অনলাইন থেকে যে কোনো জিনিস ক্রয় -বিক্রয়ের পাশাপাশি অনলাইন ইনকাম -এর মতও সুবিধা তৈরি হয়েছে।

কিন্তু ইন্টারনেট কি? ইন্টারনেট আবিষ্কার করেন কে? অথবা ইন্টারনেটের জনক কে? আর ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধাইবা কি? এই প্রশ্নগুলোর উত্তর জানার কৌতুহল প্রায় সকলেরই আছে।

আপনি যদি ইন্টারনেট সম্পর্কে প্রতিবেদনটি পড়েন তবে ইন্টারনেট রচনার আদ্যোপান্ত জেনে যাবেন। চলুন এক এক করে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।

ইন্টারনেট কী?

ইন্টারনেট এমন এক ধরণের জাল (net), যেটি সারা পৃথিবী জুড়ে (Globally) বিস্তৃত রয়েছে। পরস্পরের সাথে সংযুক্ত লক্ষ লক্ষ কম্পিউটার নেটওয়ার্কের সমষ্টি যা জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত এবং যেখানে ইন্টারনেট প্রটোকল (Internet Protocol) নামের এক প্রামাণ্য ব্যবস্থার মাধ্যমে ডেটা আদান-প্রদান করা হয়।

ইন্টারনেট শব্দটির পূর্ণরূপ হলো ইন্টারকানেক্টেড নেটওয়ার্ক (interconnected network)। অন্য কথায় নেটওয়ার্কের নেটওয়ার্কই হলো ইন্টারনেট।

আনুষঙ্গিক যন্ত্রপাতি ভাগাভাগি করে ব্যবহার করা বা পরস্পর তথ্য আদান প্রদান করার কাজটি যখন কোনো কম্পিউটারের মাধ্যমে করা হয় তখন তাকে নেটওয়ার্ক বলে।

ইন্টারনেট প্রটোকলের মাধ্যমে যখন একাধিক কম্পিউটার একসাথে হয়, তখন এটিতে গ্লোবাল নেটওয়ার্ক “Global network” বলা হয়।

ইন্টারনেট অর্থ কি?

Inter net শব্দটি মূলত ইংরেজি, যা Ether net শব্দ থেকে উৎপত্তি। ইন্টার (Inter) অর্থ হলো ’আন্তঃ, মধ্যে, ভিতরে ইত্যাদি। আর নেট (Net) অর্থ ”জাল”। অর্থাৎ, Internet অর্থ হলো হলো “অন্তর্জাল”।

অন্তর্জাল বলতে পৃথিবীব্যাপী একটি মহাজাল যা লক্ষ লক্ষ কম্পিউটারকে একটি নেওয়ার্কের মাধ্যমে সংযুক্ত করে রেখেছে।

ইন্টারনেট কাকে বলে?

অনেকগুলো কম্পিউটারকে যখন একসাথে সংযুক্ত (Link) করে কম্পিউটারসমূহের মধ্যে একটি আন্তর্জাতিক তথ্য ও যোগাযোগ ব্যবস্থা স্থাপন করা হয় তখন এই পদ্ধতিকে ইন্টারনেট বলা হয়।

সহজ ভাবে বলতে গেলে, আজকাল আমরা যে প্রযুক্তি ব্যবহার করে কম্পিউটার, ল্যাপটপ, মোবাইল, ট্যাব ইত্যাদির মতো ডিজিটাল ডিভাইসের মাধ্যমে পরস্পরের সাথে যোগাযোগ করি, তাকেই মূলত ইন্টারনেট প্রযুক্তি বলা হয়।

আরো পড়ুনঃ   মোবাইলে বাংলা কিবোর্ড ডাউনলোড ও A-Z সেটিং প্রক্রিয়া

ইন্টারনেটের ইতিহাস

ইন্টারনেটের ইতিহাসের শুরুটা হয় ৯৫০ সালের দিকে। অর্থাৎ, ইলেক্ট্রনিক কম্পিউটারের অগ্রগতির সাথে সাথে। যা আজ থেকে প্রায় ৭৩ বছর আগে।

ইন্টারনেট সম্পর্কে প্রথম ধারণা প্রবর্তিত হয়েছিল, যখন অধ্যাপক লিওনার্ড ক্রাইনরক (Leonard Kleinrock) তার গবেষণাগার ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়া (UCLA) থেকে আরপানেটের (ARPANET) মাধ্যমে একটি বার্তা স্ট্যানফোর্ড রিসার্চ ইনস্টিটিউট (SRI) তে পাঠান।

1960-এর দশকে মার্কিন যুক্তরাস্ট্রের সামরিক বাহিনীর গবেষণা সংস্থা অ্যাডভান্সড রিসার্চ প্রজেক্টস এজেন্সি (Advanced Research Project Agency) বা আরপা (ARPA) কর্তৃক পরীক্ষামূলকভাবে যুক্তরাষ্ট্রের কিছু বিশ্ববিদ্যালয় ও গবেষণাগারের মধ্যে প্যাকেট সুইচিং পদ্ধতিতে একটি বিশেষ যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলা হয়।

প্যাকেট সুইচিং পদ্ধতিতে তৈরি করা এই নেটওয়ার্ক আরপানেট (ARPANET) নামে পরিচিত ছিল। প্যাকেট সুইচিং নেটওয়ার্ক বলতে ইউকের এনপিএল, মেরিট নেটওয়ার্ক, টিমনেট, সিক্লিডিস এবং টেলেনেট এর অর্পানেটে, মার্ক ইত্যাদি।

আরপানেট (ARPANET) বিশেষভাবে নেতৃত্ব দেয় ইন্টারনেট ওয়ার্কিং (Internet working) প্রটোকল উন্নয়নের লক্ষ্যে, যেখানে নেটওয়ার্কসমূহের একাধিক পৃথক নেটওয়ার্ক একটি নেটওয়ার্কের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করতে পারে।

এরপর আরও বিভিন্ন গবেষণার ভিত্তিকে ইন্টারনেটের প্রটোকল আস্তে আস্তে অনেক বেশী সমৃদ্ধ হতে থাকে। 

ইন্টারনেট 1989 সালে আইএসপি দ্বারা জনসাধারণের ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত করা হয়। 1990 সালের পরবর্তী সময়ে পশ্চিমাবিশ্বে ইন্টারনেট ব্যাপক ভাবে বিস্তৃত হতে থাকে।

1995 সালে ইন্টারনেটকে বাণিজ্যিক পণ্যে পরিণত হয়। যা ধীরে ধীরে সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। ইন্টারনেট আবিষ্কারের ইতিহাস মূলত এটাই।

ইন্টারনেটের জনক কে?

ইন্টারনেট এর জনক কে এনিয়ে বিভিন্ন বিতর্ক রয়েছে। অনেকেই বলে ইন্টারনেটের নির্দিষ্ট কোনো জনক বা আবিস্কারক নেই।

এটি মার্কিন যুক্তরাস্ট্রের সামরিক বাহিনীর গবেষণা সংস্থা অ্যাডভান্সড রিসার্চ প্রজেক্টস এজেন্সি (Advanced Research Project Agency) বা আরপানেটের (ARPANET) যৌথ গবেষণায় তৈরি হয়েছে।

আবার অনেকেই দুজন ব্যক্তিকে ইন্টারনেটের আবিস্কারক হিসেবে সামনে নিয়ে আসে, তারা হলো ভিন্টন গ্রে কার্ফ (Vinton Gray Cerf) এবং বব কান (Bob Kahn)।

তবে বিশ্বকোষ উইকিপিডিয়ার তথ্য অনুযায়ী অধ্যাপক লিওনার্ড ক্রাইনরক (Leonard Kleinrock) এর মাধ্যমে ইন্টারনেট সম্পর্কে প্রথম ধারণা প্রবর্তিত হয়েছিল।

ইন্টারনেট কত সালে আবিষ্কার হয়?

ইন্টারনেটের ইতিহাসের সূচনা হয় ৯৫০ সালে। ৯৬০ সালের দিকে মার্কিন যুক্তরাস্ট্রের সামরিক বাহিনীর গবেষণা সংস্থা অ্যাডভান্সড রিসার্চ প্রজেক্টস এজেন্সি (Advanced Research Project Agency) কর্তৃক পরীক্ষামূলক কাজ শুরু হয়।

এই হিসেবে ইন্টারনেট আবিষ্কার হয়েছিল ৯৬০ সালে। তবে জনসাধারণের জন্য ইন্টারনেট ব্যবহারের উপযোগী হয় ৯৮৯ সালে দিকে।

ইন্টারনেট কিভাবে কাজ করে?

ইন্টারনেট হলো আধুনিক টেলিযোগাযোগের (Telecommunications) একটি শক্তিশালী নেটওয়ার্ক সিস্টেম। যা স্যাটেলাইট, অপটিক্যাল ফাইবার, টেলিফোন লাইনের তার (wire) এবং বেতার সংযোগ (Wireless connection) ব্যবহার করে কম্পিউটার, মোবাইল, টেলিফোন সহ অন্যান্য ডিজিটাল ডিভাইস (Digital device) গুলোকে World Wide Web (www) এর সাথে সংযুক্ত (connect) করে।

World Wide Web হলো ইন্টারনেট প্রযুক্তি ব্যবহার করে দর্শনযোগ্য আন্তঃসংযোগকৃত তথ্যাদির একটি বিশাল ভাণ্ডার। এটি মূলত ওয়েব ব্রাউজারের (Web browser) সহায়তা নিয়ে একজন দর্শক ওয়েবপৃষ্ঠা থেকে বিভিন্ন ডকুমেন্ট (document) বা ফাইল দেখতে পারে এবং হাইপারটেক্সট লিঙ্ক (Hypertext link) ব্যবহার করে নির্দেশনা গ্রহণ ও প্রদান করতে পারে।

ইন্টারনেট প্রটোকল (Internet Protocol) এর মাধ্যমে তথ্য আদান-প্রদান করতে বা গ্লোবাল নেটওয়ার্কের (Global network) সাথে যুক্ত হওয়ার জন্য স্যাটেলাইট, ফাইবার অপটিক ক্যাবল, তার (wire) বা বেতার (wireless) ইত্যাদির মতো যে কোনো একটি পদ্ধতি গ্রহণ করতেই হবে।

আরো পড়ুনঃ   বাংলা ও ইংরেজিতে ইমেইল লেখার নিয়ম

আমরা সাধারণত আমাদের কম্পিউটারে ফাইবার অপটিক ক্যাবল বা ওয়্যারলেস পদ্ধতি ব্যবহার করে গ্লোবাল নেটওয়ার্কের সাথে যুক্ত হই এবং তথ্য আদান প্রদানে বিভিন্ন ধরণের এ্যাপ্লিকেশন সফটওয়্যার ব্যবহার করি।

মনে করুন, আপনি আপনার কম্পিউটার থেকে ইমেইল একাউন্ট এর মাধ্যমে কোথাও একটি গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্ট পাঠাতে চাচ্ছেন, এক্ষেত্রে আপনার কম্পিউটারের সাথে ইন্টারনেট সংযোগের প্রয়োজন হবে।

যোগাযোগ ব্যবস্থার পুরো অবকাঠামো অন্তর্জাল বা ইন্টারনেটের উপর বিশেষ ভাবে নির্ভরশীল। ইন্টারনেট আসলে কোথায় থেকে আসে, কিভাবে আসে চলুন তা জেনে নিই।

ইন্টারনেট কত প্রকার ও কি কি?

ইন্টারনেটের শুরুটা সীমিত পরিসরে হলেও ধীরে ধীরে এর উন্নতি ঘটে। বর্তমানে এটি গ্লোবাল নেটওয়ার্কে “Global network” পরিণত হয়েছে।

সেইসাথে ইন্টারনেট প্রযুক্তি অনেক সমৃদ্ধ ও আধুনিক হয়েছে। আধুনিক ইন্টারনেট সিস্টেমটি মূলত ৬ প্রকার। অর্থাৎ, ছয়টি সিস্টেমে ইন্টারনেট কাজ করে। তা হলোঃ-

  1. ক্যাবল ইন্টারনেট (Cable internet)
  2. বেতার ইন্টারনেট (Wireless internet)
  3. স্যাটেলাইট ইন্টারনেট (Satellite Internet)
  4. ডায়াল -আপ ইন্টারনেট (Dial-up Internet)
  5. ডিএসএল ইন্টারনেট (DSL Internet)
  6. সেলুলার ইন্টারনেট (Cellular Internet) ইত্যাদি।

. Cable internet – ক্যাবল ইন্টারনেট কি?

ক্যাবল ইন্টারনেট বলতে যেটি অপটিক্যাল ফাইকার ক্যাবল / সাবমেরিন ক্যাবল বা ব্রডব্যান্ডের তারের (wire) মাধ্যমে কম্পিউটার অথবা ল্যাপটপে সরাসরি সংযুক্ত থাকে।

এটি খুবই জনপ্রিয় ইন্টারনেট ব্যবহারের পদ্ধতি। এই পদ্ধতির ইন্টারনেটের গতি অন্যান্য সকল ইন্টারনেট থেকে অনেক বেশী হয়ে থাকে।

২. বেতার ইন্টারনেট (Wireless internet) কি?

কম দূরত্বে তার বিহীন ইন্টারনেট সংযোগের মাধ্যমকে বেতার বা ওয়্যারলেস ইন্টারনেট বলা হয়। আমরা সাধারণত মোবাইলের মাধ্যমে ওয়াইফাই যেভাবে কানেক্ট করি তাই মূলত ওয়্যারলেস ইন্টারনেট।

এটির ইন্টারনেট ব্যবহারের জনপ্রিয় একটি পদ্ধতি। কম দূরত্বে ওয়্যারলেস ইন্টারনেটের গতি বৃদ্ধি হয় এবং বেশী দূরত্বে এর গতিও কমতে থাকে।

৩. স্যাটেলাইট ইন্টারনেট (Satellite Internet) কি?

অত্যন্ত দ্রুত গতির তার (wire) বিহীন ইন্টারনেট পরিসেবার অনন্য উদাহরণ হলো স্যাটেলাইট। স্যাটেলাইট ইন্টারনেট ব্যবহারের জন্যে কোনো প্রকার ক্যাবল বা তার সংযোগের প্রয়োজন হয় না।

মহাকাশে থাকা স্যাটেলাইট নির্দিষ্ট রেঞ্জের ভেতরে পৃথিবীর যে কোনো প্রান্তে তার বিহীন ইন্টারনেট সরবারহ করতে পারে। ইন্টারনেট প্রযুক্তিতে এটি একটি নতুন উদ্ভাবণ।

৪. ডায়াল -আপ ইন্টারনেট (Dial-up Internet) কি?

সাধারণত স্ট্যান্ডার্ড ফোন লাইন এবং এনালগ মডেম ব্যবহার করে যে ধরণের ইন্টারনেট সংযোগ পাওয়া যায় তাকে ডায়াল-আপ সংযোগ বলে। এটি গড়ে 56 kb কিলোবাইট পর্যন্ত ডেটা স্থানাস্তর করতে পারে।

এই পদ্ধতির ইন্টারনেট অনেক স্লো হওয়ায় এর ব্যবহার অনেক কমে গেছে। বর্তমানে সচারাচর এই ধরণের ইন্টারনেট ব্যবহারে দৃশ্য দেখাই যায় না।

৫. ডিএসএল ইন্টারনেট (DSL Internet) কি?

Dial-up Internet অত্যন্ত ধীরগতির হওয়ায় এর ব্যবহার বর্তমানে সচারাচর দেখা যায় না। তবে টেলিফোন প্রযুক্তিকে টিকিয়ে রাখতে Dial-up Internet এর বিপরীতে DSL Internet বাজারে এসেছে।

ডিএসএল ইন্টারনেট মূলত একটি ক্যাবল কানেকশন (Cable connection) যা ডায়াল আপ ইন্টারনেট থেকে প্রায় ০০ গুণ গতিসম্পন্ন।

৬. Cellular Internet – সেলুলার ইন্টারনেট কি?

মোবাইল ফোনে সিম দিয়ে যেই ধরণের ইন্টারনেট ব্যবহার করা হয়, তাই মূলত সেলুলার ইন্টারনেট। এই ইন্টারনেট প্রযুক্তিটি প্রায় সকলেই ব্যবহার করে।

ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধা

ইন্টারনেট আমাদের দৈনন্দিন জীবনের বিভিন্ন কাজ করার ক্ষেত্রে সুবিধা তৈরি করে দিয়েছে। বিশেষ করে শিক্ষা, চিকিৎসা, গবেষণা ও তথ্য আদান -প্রদানের ক্ষেত্রে ইন্টারনেটের অবদান অনস্বীকার্য বলা যায়।

আরো পড়ুনঃ   মোবাইলে বাংলা কিবোর্ড ডাউনলোড ও A-Z সেটিং প্রক্রিয়া

ইন্টারনেট ও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের ব্যবহার আমাদের জ্ঞানের ভাণ্ডারকে সমৃদ্ধ করেছে। আমরা এখন যে কোনো বিষয়ের জ্ঞান মূহুর্তের মধ্যেই জেনে নিতে পারি। আর এসবই ইন্টারনেটের অবদান।

ইন্টারনেটের সেরা ৫টি ব্যবহার

আমরা প্রায় প্রত্যেকেই ইন্টারনেট ব্যবহার করি। তবে ইন্টারনেটের ৫ টি ব্যবহারে আমাদেরকে বিশেষ ভাবে প্রভাবিত করে এবং প্রত্যেক ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের জীবনে ইন্টারনেটের এই ৫ টি ব্যবহার খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

১. তথ্য সংগ্রহ (Data collection): ইন্টারনেটকে তথ্যের সমুদ্র বলা হয়। ইন্টারনেট থেকে আপনি যে কোনো বিষয়ের ইতিহাস এবং জ্ঞান আহরণ করতে পারবেন।

ইন্টারনেটের জ্ঞান ভাণ্ডার প্রতিনিয়তই সম্প্রসারণ হচ্ছে। অবাক করা বিষয় হলো ইন্টারনেটের ভাণ্ডারে যে পরিমাণ তথ্য সংগ্রহ আছে, তা পৃথিবীর অন্য কোথাও নেই।

২. ঘরে বসেই শিক্ষা (Online education): বিশ্ব বিখ্যাত শিক্ষকদের কাছে এখন ঘরে বসেই পড়াশোনা করা যায়। যা স্বশরীরের কখনই সম্ভব হতো না।

তাছাড়া, কর্ম দক্ষতা বৃদ্ধিকরণে পৃথিবীর সফল ব্যক্তিদের থেকে ইন্টানেটের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ নেওয়া যায়। এটা সত্যিই ক্যারিয়ার উন্নয়নে অনেক বড় ভূমিকা রেখেছে।

৩. যোগাযোগ ব্যবস্থা (Communication system): ইন্টারনেটের কল্যাণে যোগাযোগ ব্যবস্থা আধুনিকতার ছোঁয়া পেয়েছে। আদী যুগে যোগাযোগের একমাত্র ব্যবস্থা ছিল চিঠি। এটি অনেকটা ব্যয়বহুল এবং কষ্টসাধ্য ব্যাপার ছিল।

কিন্তু ইন্টারনেট আসার পর থেকে যোগাযোগ ব্যবস্থা অনেক সহজ হয়ে গেছে। সোশ্যাল মিডিয়ার পাশাপাশি যোগাযোগের জন্য আমরা বিভিন্ন ধরণের পদ্ধতি ব্যবহার করে থাকি। তারমধ্যে প্রধারণত হলো ইমেইল (Email)।

ইন্টারনেটে তথ্য আদান প্রদানের জন্য সবচেয়ে সিকিউর এবং সহজ পদ্ধতি হলো ইমেইল। বর্তমানে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের প্রায় ৮০ শতাংশ ব্যবহারকারীই তথ্য আদান প্রদানের জন্য ইমেইল ব্যবহার করে থাকেন।

৪. অনলাইন শপিং (Online shopping): বর্তমান সময়ে নিজ ঘরে বসেই ইন্টারনেটের মাধ্যমে অনলাইন থেকে যে কোনো ধরণের পণ্য ক্রয় করা যায়।

ইন্টারনেট আসার আগে যা চিন্তাই করা যেতো না। অনলাইনে পণ্য ক্রয়-বিক্রয়ের বিষয়টাকে ডিজিটাল বাণিজ্য বা ই-কমার্স নামে নামকরণ করা হয়েছে।

৫. অনলাইন ইনকাম (Online income): পেশাগত দক্ষতা উন্নয়নে ইন্টারনেটের ব্যবহার অনেক গুরুত্বপূর্ণ। বর্তমানে আপনার দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে অনলাইনে থেকেও ইনকাম করতে পারবেন।

আপনি যে কোনো শ্রেণী -পেশার মানুষ হোন না কেন, অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জন করার ক্ষেত্রে কোনো বাঁধা নেই। স্টুডেন্টদের জন্যও অনলাইন ইনকাম করার ব্যাপারটা উন্মুক্ত।

ইন্টারনেট এমন একটি সুযোগ তৈরি করে দিয়েছে যে, এখানে কালো-সাদার ভেদাভেদ নেই, রাজনৈতিক পরিচয় নেই, শ্রেণী বিন্যাস নেই। আপনি যে কোনো পেশার মানুষ হোন না কেন, অনলাইনে চাকরি করার জন্য শুধুমাত্র প্রয়োজন আপনার কর্ম দক্ষতা।

গুরুত্বপূর্ণ আরো কিছু কথাঃ

প্রিয় পাঠক, ইন্টারনেট কি এবং এটি কিভাবে কাজ করে আপনাদের সহজভাষায় বুঝাতে চেষ্টা করেছি। তাছাড়া, ইন্টারনেটের জনক কে বা ইন্টারনেটের আবিষ্কারক কে এই বিষয়েও সুস্পষ্টভাবে আপনাদের বলেছি।

অনেকেই প্রশ্ন করেন ইন্টারনেট কিভাবে উৎপন্ন হয়? ইন্টারনেট মূলত উৎপন্ন হয় স্যাটেলাইট এবং সমুদ্র থেকে। স্যাটেলাইট ইন্টারনেট সম্পূর্ণ তার বিহীন হয় এবং সমুদ্র থেকে পাওয়া ইন্টারনেট মূলত সাবমেরিন ক্যাবল দিয়ে আসে। তারপর এটিকে বিভিন্ন ভাবে প্রক্রিয়াজাত করে জন মানুষের কাছে বিতরণ করা হয়।

প্রকৃত ব্যবহারে ইন্টারনেটের সুবিধা যেমন, অপব্যবহারে ইন্টারনেটের অপকারিতাও রয়েছে। ইন্টারনেটের সুবিধা ও অসুবিধা রচনা করলে অনেক কিছুই বলা যাবে। ইন্টারনেটকে ভালো কাজে ব্যবহার করলে অবশ্যই ইন্টারনেটের উপকারিতা রয়েছে।

NAZIRUL ISLAM NAKIB

যত জ্ঞান-ধন করেছি অর্জন জীবনের প্রয়োজনে,
তার সবটুকুই বিলাতে চাই সৃষ্টির কল্যাণে।

Add comment