নিজেকে নিয়ে উক্তি বা নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস

নিজেকে নিয়ে উক্তি বা নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস

প্রত্যেক মানুষের মধ্যে স্বকীয়তা ও প্রতিভা বলে একটি মূল্যবান জিনিস রয়েছে। যা আমরা পর্যায়ক্রমে নিজেকে নিয়ে উক্তি বা নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাসের মাধ্যমে বিভিন্ন উপায়ে তা প্রকাশ করি।

সৃষ্টিলগ্ন থেকেই মানুষ তার স্বপ্ন, চাহিদা, আশা, আকাঙ্খা এবং মনেব ভাব বিভিন্ন ভাষায় প্রকাশ করতে পারে। হতে পারে সেটা মুখের ভাষা, চোখের ভাষা, শরীরের অঙ্গ-প্রতঙ্গের ভাষা বা লেখনীর ভাষায়।

লেখনীর ভাষাগুলো সর্বজনীন এবং সবচেয়ে বেশি সময় ধরে এ-ভাষা মানুষের মাঝে বিদ্যমান। পৃথিবীর বিভিন্ন প্রান্তের বিভিন্ন মনীষীগণ তাদের মনের ভাষাগুলোকে বিভিন্ন উপায়ে প্রকাশ করেছেন।

আরও পড়ুনঃ নিজের সম্পর্কে ০ টি বাক্য বাংলায়

নিজেকে নিয়ে উক্তি করলে আত্মনির্ভরতা আসে। আত্মবিশ্বাস ও মনোবলের জায়গা তৈরি হয়। আজ আমি আপনাদের সাথে নিজের সম্পর্কে কিছু উক্তি উপস্থাপন করবো, যেগুলো আপনাকে আত্মবিশ্বাসী হতে সাহায্য করবে।

নিজেকে নিয়ে উক্তি বা নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস

. যে নিজেকে অক্ষম ভাবে, তাকে কেউ সাহায্য করতে পারে না। – জন এন্ডারসন

০২. মানুষ নিজেই নিজেকে অসুখী মনে করে, তার কারণ সে সর্বদা ব্যর্থতার হিসাব করে। জীবনটাই যে মস্ত বড় পাওয়া এটা সে মৃত্যুর আগে বুঝতে পারে না। -লুথার হাম

০৩. তোমার নিজের আচরণ যদি পরীক্ষার সম্মুখীন হয়, তবে অন্যের নিকট তুমি যে কোনো অবস্থাতেই জনপ্রিয় থাকতে পারবে। – হযরত আলী (রা.)

০৪. সব মানুষের মধ্যে যে নিজেকে সবচেয়ে অসুখী মনে করে সেই সবচেয়ে অসুখী। -হিউম

০৫. আমি অসম্ভবকে সম্ভব করতে চেষ্টা করি না এবং যা হয়ে গেছে তা নিয়ে শোক করি না। – পঞ্চম জর্জ

০৬. নিজের সন্তানের ভালো-মন্দ দিকগুলো সম্বন্ধে যে পিতা সচেতন সেই যথার্থ পিতা। -টেগনার

০৭. আমি আমার বিশ্বস্ত বন্ধুকে যেমন ভালোবাসি তেমনি শক্তিশালী শত্রুকেও ভালোবাসি, কারণ এরা দুজনেই আমার উন্নতির মূলে সমানভাবে কাজ করে। – জর্জ বার্নার্ড শ

০৮. নিজের অজ্ঞতা সম্বন্ধে অজ্ঞানতার মতো অজ্ঞান আরো তো কিছু নেই। -রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

আরও পড়ুনঃ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মুদ্রার নাম

০৯. অন্যের চিত্তে বাসনা জাগ্রত করুন। এটা করতে পারলে আপনি দুনিয়াটাই জয় করে নিতে পারবেন। আর এটা যে করতে পেরেছে, তাকে কখনো একাকীত্বের যন্ত্রণা ভোগ করতে হবে না। – অধ্যাপক হ্যারি এ ওভার স্ট্রিট

০. নিজের কথা ভেবে অন্যের বিচার করুন। -আব্রাহাম লিঙ্কন

১১. বিখ্যাত হওয়ার প্রথম প্রদক্ষেপ হলো বিশ্বাসী হওয়া। – ওয়াল্ট হুইটম্যান

২. তুমি যত বেশি মাধুর্যমণ্ডিত ব্যক্তিদের সংস্পর্শে আসবে, তোমার ব্যবহার তত বেশি মধুন হবে। – এডাম স্মিথ

৩. অন্যের যেরূপ ব্যবহারে তুমি নিজে বিরক্ত হও, অন্যের প্রতি ভুলেও সেরূপ ব্যবহার করিও না। – কনফুলিয়াস

৪. আমি একটি ভালো কাজ করতে যাচ্ছি, এটাই আমার জন বড় শান্তনা। -উইল কারলিটন

৫. নিজেই প্রতিশোধ নিও না, আল্লাহর অপেক্ষা কর। তিনিই তোমাকে রক্ষা করবেন। -হযরত সুলায়মান (আ.)

৬. লোকের মুখে প্রশংসা শুনেই কারো প্রতি আকৃষ্ট হবে না, যতক্ষণ না নিজে পরীক্ষা করে লও। -হযরত আলী (রা.)

৭. আমি আমার নিজের দেশে দারিদ্র হিসেবে জীবন কাটাতে চাই, অন্য দেশে সম্পদশালী হিসেবে জীবন কাটাতে আমি আগ্রহী নই। -সিডনি স্মিথ

৮. তোমার নিজের মধ্যে যে দোষ রয়েছে অন্যের মধ্যে সে দোষ দেখে সমালোচনা করা সর্বাপেক্ষা বড় দোষ। – হযরত আলী (রা.)

আরও পড়ুনঃ মিরসরাই কিসের জন্য বিখ্যাত? (ইতিহাস ও দর্শনীয় স্থান)

৯. তুমি যে কাজে নিযুক্ত হবে সে কাজ মন দিয়ে ভালো করে করবে। কাজ যত সামান্যই হোকনা কেন, সৎ, পরিশ্রমী ও বুদ্ধিমান লোক সেই কাজের দ্বারাই উন্নতি লাভ করে। কোন কাজেই নিজের আত্মসম্মান ছোট করা মহা অপরাধ। – বুকার টি ওয়াশিংটন

২০. উন্নয়ন হঠাৎ ঘটে যায় না। লক্ষ্য স্থির করে নিজের মধ্যে প্রয়োজনীয় পরিবর্তন সাধন দ্বারাই তা সম্ভব হয়। – পল এইচ ল্যান্ডিস

শেষ কথাঃ

প্রিয় পাঠক, নিজেকে আত্মবিশ্বাসী হিসেবে প্রমাণ করতে নিজেই নিজেকে উৎসাহ দিন। নিজেকে নিয়ে উক্তি করুন। বেশি বেশি বই পড়ুন। তবেই দেখবেন আপনার মধ্যে আত্মবিশ্বাসের জায়গা তৈরি হয়েছে।

আপনি যদি কোনো সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করেন, তবে সেখানে নিজেকে নিয়ে স্ট্যাটাস দিতে পারেন। আপনার প্রতিভা প্রকাশ করতে পারেন। এটাও আপনাকে আত্মবিশ্বাসী হতে সাহায্য করবে।

যাইহোক, আমি চেষ্টা করেছি বিভিন্ন মনীষীদের বাণী থেকে নিজের সম্পর্কে কিছু উক্তি উপস্থাপন করার জন্য। আশাকরি আপনারা উপকৃত হবেন ইনশাআল্লাহ।

Add comment

Your Header Sidebar area is currently empty. Hurry up and add some widgets.